স্যালারি কম হলেই কি চাকরি খারাপ?

আমাদের দেশে প্রচুর ছেলে মেয়ে হতাশ থাকে চাকরি আর স্যালারি নিয়ে! বিশেষ করে ফ্রেশ ইঞ্জিনিয়ারদের এই টা একটু বেশি চিন্তার ব্যাপার। এ কারনেই আমাদের দেশে কছু জোক্স বা ফেজবুক স্ট্যাটাস দেখবেন, একজন ইঞ্জিনিয়ার এর স্যালারি আর একজন সিএনজি ড্রাইভার এর স্যালারি কম্পেয়ার করা হয়।

আজকে আমি স্যালারি, জব সিকিউরিটি, সোস্যাল স্টাটাস নিয়ে আমার ব্যাক্তিগত মতামত দিব। পড়ে দেখতে পারেন, কিছু কনফিউশন দূর হবে আশা করছি। আরেকটা ব্যাপার, আমি খুবই ছোট একজন মানুষ তাই আমার মতামত আপনার সাথে মিলতে নাও পারে। আর আমার লেখাটি আমি ফাউন্ডার এর দৃষ্টিকোন থেকে লিখব। সেটাও আপনার ভালো নাও লাগতে পারে।

স্যালারি এত কম কেন?

ছেলে-মেয়েরা প্রথমে যে কম্পেয়ার করে, একজন ফ্রেশ গ্রাজুয়েট এর বেতন কত? ১৫ থেকে ২৫ হাজার টাকা মাত্র। যেখানে রাস্তার পাশে ঝালমুড়ি বিক্রেতা বা ফুচকাওয়ালা মাসে ৫০-৬০ হাজার টাকা ইনিকাম করে থাকে। তাহলে আমার এত্ত কষ্ট করে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ে কি লাভ হলো? বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আরও একটু বেশি কষ্ট। এত এত পরিশ্রম সাথে কয়েক লাখ টাকা খরচ করে বেতন এই কয় টাকা মাত্র?

বলে রাখি, শুধু মাত্র লজিক্যাল ডিসকাশনের জন্য অনেক প্রফেশনের মানুষ কে এখানে টানা হচ্ছে। ব্যাক্তিগত ভাবে আমি প্রতিটি প্রফেশনের মানুশ কে শ্রদ্ধা করি, সম্মান করি।

আচ্ছা, এবার আমাকে বলুন, একজন ফুচকাওয়ালা যদি ৫ বছর একই স্থানে ফুচকা বিক্রি করে, তাহলে তার ইনকাম কি সেই ৫০-৬০ হাজার থাকবে নাকি দের লাখ টাকা হবে? উনার ইনকাম মোর-অর-লেস একই থাকবে। খুব একটা পরিবর্তন হবে না। উলটা যদি উনার স্থান চেঞ্জ করেন, উনার ইনকাম কমে যেতে পারে।

এবার নিজের দিকে তাকান, আপনি যদি ৫ বছর একই ট্র্যাকে ইঞ্জিনিয়ারিং চাকরি করেন, কোম্পানি আপনাকে ১ লাখ টাকার নিচে স্যালারি অফার করার সাহস পাবে? আপনি হয়ত বলবেন, আপনি অনেক এমন অনেক কে চেনেন। যারা ৫ বছরের বেশি সময় ইঞ্জিনিয়ারিং চাকরি করে কিন্তু বেতন ৬ ডিজিট হয় নি। সেই ব্যাখ্যাটা নিচের দিকে দিচ্ছি। সামনে আগাই চলেন!

আচ্ছা ভালো কথা, একজন ফুচকা বিক্রেতা সপ্তাহে কয়দিন যেন কাজ করে? আর আপনি যেন কয়দিন করেন? আর ফুচকাওয়ালা সিক হয়ে ঘরে থাকলেও তো ইনকাম হয় না! আর আপনার তো অসুখ হলে বেতন কাটা যায়, না? আর ফুচকাওয়ালা তো গায়েবি ভাবে সিকনেস এলাউন্স পায়, আপনি তো পান না?

ইঞ্জিনিয়ারিং এ আপনার স্যালারি সময়ের সাথে সাথে বাড়বে। ভাল ভাবে কাজ করে গেলে আপনার স্যালারি ১০-১২ লাখ টাকা হতে পারে। এটা শুধু সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং এ না, যে কোন প্রফেশনে হতে পারে। কিন্তু রাস্তার পাশে যে ঝালমুড়ি বিক্রি করে, তার ইনকাম কিন্তু প্রায় একই থাকবে। এই যে উন্নতির গ্রাফ, এটাই হচ্ছে আপনার ডিগ্রি বা স্কিলস এর রিটার্ন।

এর পরেও যদি কথাটা মাথায় না ঢুকে, যাস্ট চিন্তা করুন, রাস্তার পাশের ফুচকাওয়ালা মাসে ৫ লাখ টাকা ইনকাম করছে…

সোস্যাল স্ট্যাটাস

আমার একটা গ্রেট মোটিভেশন হচ্ছে, মানুষ কি ভাবল, সেটা যদি আমিই ভাবি, তাইলে মানুষ কি ভাববে? ওয়েল আমি এটা ভাবি, এভাবে কাজ করি, তাই বলে কি আমি সমাজের বাইরে? দেখুন গ্রামে যে ফার্মার দিন আনে দিন খায়, তার লাইফ আপনার থেকে মিলিয়ন টাইম শান্তির। এখন আপনি পারবেন, সব ছেড়ে দিয়ে গ্রামে ফেরত যেতে? সব ছাড়া দূরে থাক, নিজের হাতের স্মার্টফোন এর ইন্টারনেট কয়েক ঘন্টা বন্ধ করে রাখেন তো?

আমরা না চাইলেও আমারা সমাজের পার্ট, আমরা অনেক কিছু করি যেটা থেকে পরিত্রান এর উপায় নেই। আচ্ছা, আবার ফুচকাওয়ালার কথায় ফেরত আসি। আপনি বিএসই ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে বেতন পান ২৫ হাজার আর আপনার কম্পেয়ার করা ফুচকাওয়ালা ইনকাম করে আপনার ডাবল। এখন সমাজে আপনার যে ভ্যালু, তার কি সেই একই ভ্যালু? তার তো ইনকাম বেশি, আপনার ডাবল, তাহলে তার ভ্যালু আপনার ডাবল ধরাই যায়?

শুনেন, এই যে সোস্যাল ভ্যালু, এইটা আসছে আপনার ডিগ্রি থেকে, আপনার চাকরি থেকে। এখন আপনি যদি বলেন, সোস্যাল স্টাটাস ধুয়ে কি পানি খাবো? তাইলে আবার বলি, আপনি যে ডিভাইস থেকে এই ব্লগ পড়ছেন, সেটা ধুয়ে কি পানি খান?

আর একটা উদাহরন দেই, আমার বিশ্ববিদ্যালয় লাইফে আমি কয়েকজন ফ্রিল্যান্সার শিক্ষার্থীকে দেখেছি। যারা পিএইচডি করে জয়েন করা এসিস্ট্যান্ট প্রফেসর এর বেতনের ডাবল-ট্রিপল ইনকাম করে। এখন এই যে শিক্ষার্থী, এদের কে কি আপনি বেশি ভ্যালু দিবেন?

বসরা সব ইনকাম নিয়ে যাচ্ছে, আমাদের বেতন কমায় খাটায় মারে!

প্রকাশ্যে না বললেও, ইমপ্লয়ীদের একটা বিশাল অংশের অভিযোগ, বসরা কম বেতন দিয়ে কাজ করিয়ে নিচ্ছে। বিশেষ করে, ছোট আর মাঝারি মানের কোম্পানিতে এই অভিযোগ বেশি থাকে। অনেকে মনে করেন, বসরা একটা টিম বানাইছেন, এখন আমাদের দিয়ে ইনকাম করিয়ে নিচ্ছেন!

0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close