মেশিন লার্নিং এর যুগে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স জব খেয়ে দিবে? এমন প্রশ্ন হওয়াটা দোষের কিছু না।

আমাদের দেশে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এবং মেশিন লার্নিং এর মত মডার্ন টেকনোলজি গুলো অনেক বেশি জনপ্রিয়।

আমার ইউটিউব চ্যানেলের একটি ভিডিওতে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর বিরোধিতা করা ওই ভিডিওর কমেন্ট বক্সে সব স্টুডেন্ট্রা আমাকে ধুরে দিয়েছে।

সেখান থেকে আমি দেখেছি এই দেশে অনেক শিক্ষার্থী রয়েছে,

তারা কিন্তু আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এবং মেশিন লার্নিং এর মত মডার্ন টেকনোলজি গুলো এডাপ্ট করার চেষ্টা করছে।

এবং অনেকেই রয়েছেন যারা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর মধ্যে  টেকনোলজি গুলোকে প্রচুর পছন্দ করেন।

শুধু যে আমাদের দেশেরই এটার গ্রো হচ্ছে বা জনপ্রিয়তা বাড়ছে এমন নয়।

ওয়ার্ল্ড ওয়াইড কিন্তু আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স,মেশিন রানিং,ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং ডাটা সাইন্স এর মত মডার্ন টেকনোলজি গুলো নিয়ে প্রচুর কাজ হচ্ছে।

প্রচুর রিসার্চ হচ্ছে এবং এই ইন্ড্রাস্ট্রি গুলো কিন্তু খুবই দ্রুত গ্রো করছে।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স আমাদের চাকরি জিবনে কি সমস্যা করবে?

ইঞ্জিনিয়ারিং এ সবচেয়ে সহজ সাবজেক্ট কোনটি?

এখন অনেকেই আমাকে এর জন্য কোশ্চেন করে থাকেন যে,

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স গ্রো করার ফলে আমরা কি আমাদের চাকরি হারাতে যাচ্ছি

আমরা রেগুলার যে কাজগুলো করে থাকি,ওয়েব ডিজাইন ওয়েব ডেভেলপমেন্ট,সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট,

এছাড়া বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে ছোট ছোট অনেক কাজ করে থাকে এই কাজগুলোতে আমরা হারাতে যাচ্ছি কিনা?

মোটকথা যদি ফ্রেন্ডলি বলি যে আর্টিফিশিয়াল মেশিন লার্নিং কি আমাদের জন্য দুর্ভোগ টেনে আনবে আমাদের চাকরি কি খেয়ে নিবে?

এই ব্লগের মাধ্যমে আমরা দেখার চেষ্টা করব যে,

মডার্ন ল্যাঙ্গুয়েজ গুলো বা এ সিমিলার ল্যাঙ্গুয়েজ গুলো আমাদের পার্সোনাল লাইফ বা চাকরি লাইফে কিভাবে ইফেক্ট করবে।

অথবা টোটালি আমাদের জব খেয়ে দিবে কিনা,

এ অবস্থায় আমাদের আসলে অবস্থায় কি করা উচিত?

এই মুহূর্তে আমাদের জন্য কি পরামর্শ রয়েছে সেগুলো নিয়ে চলুন বিস্তারিত আলাপ আলোচনা করা যাক।

আমাদের অফিসে এই মুহূর্তে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর উপর বেজড করে সফটওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে।

যেটি করা হচ্ছে একটি মাত্র অ্যাসিস্ট্যান্ট এর মাধ্যমে,এটি কোন অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটা আমরা অন্য ব্লগে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করব।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এ আই সফটওয়্যারটি এর কাজ কি?

আপনি যত ধরনের রাইটিং রয়েছে যেমন

  • ওয়েবসাইট রাইটিং
  • হতে পারে ব্লগ রাইটিং
  • হতে পারে সোশ্যাল মিডিয়ার রাইটিং
  • হতে পারে আপনার কোন টিজার রাইটিং
  • হতে পারে,ইমেইল রাইটিং

এরকম যত ধরনের রাইটিং রয়েছে সেখানে কিন্তু আপনার আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর উপর বেজড করে আপনাকে সাপোর্ট দিবে এই নতুন সফটওয়্যার টি।

এখন এই যে আপনাকে সাপোর্ট দিবে,সাপোর্ট দেওয়ার জন্য কিন্তু এই সফটওয়্যার টিকে আপনার কিছু ইনপুট দিতে হবে।

যেমন ধরেন আপনি কোন একটি ওয়েবসাইটের কপি লিখবেন সে ক্ষেত্রে আপনার টার্গেটেড কিওয়ার্ড কি?

আপনি আসলে কি ধরনের  কিওয়ার্ড দিয়ে রেংক করাতে চাচ্ছেন,এর বাইরে আপনার নিজস্ব কি কি স্ট্র্যাটেজিক রয়েছে।

আপনি আপনার যে ল্যান্ডিং পেজ রয়েছে এখানে কি ফুটিয়ে তুলতে যাচ্ছেন।

চাকরির বাজারে সিজিপিএর গুরুত্ব কতটুকু?

এখন এই ইনফর্মেশন গুলো কিন্তু  ওই টুলস টিকে দিতে হবে,ওই সফটওয়্যারটিকে ইনপুট দিতে হবে।

যখন আপনি এগুলো প্রপারলি ইনপুট দিবেন তখনই শুধুমাত্র এই টুলসটি আপনাকে বেটার আউটপুট দিতে পারবে।

তবে অন্যান্য ল্যান্ডিং পেজ অথবা অন্যান্য ওয়েবসাইট কপি এনালাইসিস করার মাধ্যমে।

বাস্তব অভিজ্ঞতা কি বলে?

আমরা আমাদের অফিসে কিছুদিন আগেই এই টুলস নিয়ে কথা বলছিলাম এবং আমি আমাদের মার্কেটিং এর যে সি এম ও রয়েছে সরাসরি তাকে ইনফর্মাল জিজ্ঞাসা করেছিলাম যে,

আমাদের যে রাইটার রয়েছে তাদের জব চলে যাবে কিনা?

উনি আসলে আমাদেরকে সুন্দর করে ব্যাখ্যা গুলো দিলেন যে

যারা রাইটার রয়েছে বা যারা কনটেন্ট রাইটার রয়েছে এ ক্যাটাগরিতে যারা এম্প্লয়ের রয়েছে তাদের জব চলে যাওয়ার আর কোন কথাই নেই,কারণ আপনাকে এই টুলসটি পরিচালনা করার জন্য কিন্তু ইনপুট দিতে হবে 

এই টুলসটির আউটপুট বের করার জন্য কিন্তু আপনাকে কোন কিছু ইনপুট দিতে হবে,

এবং ইনপুট দেয়ার জন্য কিন্তু আপনার অবশ্যই হিউম্যান দরকার হলে।

এই টুলসটি আসলে আপনাকে কিভাবে হেল্প করবেন বা ম্যাস ইন্ডাস্ট্রিকে কিভাবে হেল্প করবে।

দেখুন যদি আমরা ম্যানুয়ালি বিভিন্ন ভাবে সার্চ করি তখন ভিন্ন জায়গা থেকে ডাটা কালেক্ট করার জন্য এনালাইসিস করি,

সেটা কিন্তু বেশ সময়সাপেক্ষ ব্যাপার।

এবং বেশিরভাগ সময়ই এটা একুরেট হতে পারে না,বেশিরভাগ সময়ে পারসন টু পার্সেন্ট ডিফেন্ড করতে পারে। পার্সোনাল এক্সপেরিয়েন্স এর উপরে।

রিমোট জব কি ভালো নাকি খারাপ?

কিন্তু যখন আমরা এই এনালাইসিস গুলো যখন আমরা এই কপিরাইটিং গুলো যখন আমরা এই ai2 এর মাধ্যমে দেখব সবসময়ই একুরেট হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।

একই সাথে সবসময় কিন্তু একই ধরনের আউটপুট দিবে।

তাহলে এই যে আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা ব্যয় করে বিভিন্ন ওয়েবসাইট এনালাইসিস করতে হতো,

সেটি কিন্তু এখন আর করা লাগবে না।

সেটা কিন্তু আমাকে এই ai2 সিটি এনালাইসিস করে দিবে।

একই সাথে আরেকটি গুড নিউজ হচ্ছে এই আই টুলসটি রেগুলার ভাবে শেয়ার ব্রেইন হতে থাকবে এটা কিন্তু দিনকে দিন ইমপ্রুভ হতে থাকবে

যার ফলে আপনি ডে বাই ডে আরো বেটার আউটপুট পাবেন।

মার্কেটের কি অবস্থাঃ

মার্কেটে এই মুহূর্তে অনেক এ আই কোর্স রয়েছে রাইটিং এসিস্টেন্ট হিসেবে,

যদিও সেই কোর্স এর ওপর এখনও ইন্ডাস্ট্রিতে সবাই সেভাবে ভরসা করতে পারছেন না।

তাই এখনো আমরা মেনুয়ালি রাইটারদের কে হায়ার করে থাকি। 

তবে আমার ধারনা খুব শীঘ্রই কিন্তু ম্যানুয়াল রাইটারদের কাজ খুব একটা থাকবে না

 কোনটা আপনার জন্য? সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং এবং নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ারিং

শুধুমাত্র যারা স্ট্রাটেজি তৈরি করে,যারা আপনাকে এই ইনপুট দিতে পারবে অ্যাসিস্ট্যান্ট টুলস কে।

অ্যাসিস্ট্যান্ট এর মাধ্যমে বেটার আউটপুট বের করতে পারবে তাদেরই দরকার হবে।

রাইটিং ইন্ড্রাস্ট্রিতে কি পরিবর্তন আসবে?

সেটি হচ্ছে যারা একদম লিভার টাইমে লেখালেখি করেন,একেবারেই চিন্তাভাবনা হীন ভাবে লেখালেখি করে তাদের কিন্তু কাজ থাকবে না।

কিন্তু যারা স্মার্ট পিপল থিংকিং করতে পারে,যারা প্রবলেম সলভ করতে পারে তাদের কিন্তু অবশ্যই অবশ্যই কাজ থাকবে।

এখন চলুন আমরা কথা না বাড়িয়ে পরে এক্সাম্পল এদিকে যাই।

একটা সময় ছিল যখন আমাদের দেশ সহ বিশ্বের অনেক দেশে অনেক জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সাররা ছিল।

যারা একটি মাত্র কাজ করার মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করেছে এবং কোম্পানি পর্যন্ত দিয়েছে শুধুমাত্র ছবি  ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করার কাজের মাধ্যমে।

এবং একসময় এটি ভিডিও ইন্ড্রাস্ট্রি গ্রো করার ফলে ,ভিডিও ব্যাকগ্রাউন্ড গ্রো করার কারণেও অনেক বড় বড় প্রপুলার ফ্রিল্যান্সার তৈরি হয়েছে।

কিন্তু এখন যদি আপনি মার্কেটের দিকে তাকান,

কেউই কিন্তু আপনাকে ইমেজ ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করার জন্য বা ভিডিও ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করার জন্য কাউকে হায়ার করবেনা।

কারণ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্ট বেষ্টনী সফটওয়্যার মার্কেটে চলে এসেছে

যদি উদাহারন দিতে হয়ঃ

remove.bg দিয়ে আপনি যেকোন ধরনের ইমেজ বা ভিডিও ব্যাকগ্রাউন্ড সহজে রিমুভ করে ফেলতে পারবেন একেবারেই একুরেট ভাবে এবং মুহুর্তের মধ্যে এক সেকেন্ডের মধ্যে।

এর পাশাপাশি আরও অনেক ধরনের টুলস রয়েছে মার্কেটে যেগুলোর মাধ্যমে আপনি সহজেই আপনার ভিডিওর রিমোভ করতে পারেন এবং ভিডিও তৈরি করে ফেলতে পারেন।

দেখুন ইমেজ ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করার জন্য,ভিডিও ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করার জন্য কিন্তু এখন আর কোনো কর্মীর চাহিদা নেই।

কাজেই এই ধরনের স্কিলস যাদের ছিল তারা কিন্তু এখন জব্লেস

কিন্তু আপনার মাথায় রাখতে হবে যে একটি ভিডিও কিভাবে ইমপ্রুভ হবে,একটি ভিডিও কিভাবে এডিট করতে হবে কোন সিকোয়েন্স আসবে।

ডিপ্লোমা পাশ করে গুগলে চাকরি ?

সেটি কিন্তু এখনো কোনো এ আই টুলস এর মাধ্যমে তৈরি করা সম্ভব হয়নি।

হিউম্যান ব্রেইন কোথায় দরকারঃ

বা একটি ইমেজ ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করার পরেই কত সাইজ হবে এবং সেই ইমেজ কোথায় বসাবেন,

সেটি কীভাবে ম্যানিপুলেট করবেন,কিভাবে ইউটিলাইজ করবেন এটি কিন্তু এই এ আই মাধ্যমে করা সম্ভব নয়।

এগুলো ঠিকঠাক করার জন্য কিন্তু আপনার হিউম্যান দরকার হবে,

সে ক্ষেত্রে যদিও আমাদের একেবারে লিভার টাইম বা বেসিক কাজগুলো ছিল সেগুলো এ আই টুলস করে দিচ্ছে।

আমাদের একেবারে এডভান্স গুলো যেখানে আমাদের হিউম্যান ব্রেইন এর থিংকিং দরকার ছিলো সেখানে কিন্তু এখনো হিউম্যান দরকার হচ্ছে।

অনেকে রয়েছেন কম্পিউটার সায়েন্সে ভর্তি হতে চান অথবা কম্পিউটার সায়েন্স এ পড়াশোনা করতে চান অথবা কম্পিউটার সাইন্স ক্যারিয়ারে অনেক কিছু নিয়ে হতাশায় রয়েছেন।

তাদের জন্য আমি একটি ফেসবুক গ্রুপ খুলেছি যে গ্রুপের লিংক দেয়া থাকবে ডেসক্রিপশন বক্সে।

সেখান থেকে জয়েন করলে আপনি আমাকে সরাসরি কোশ্চনস করতে পারবেন।

আমরা এবারে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সচ,ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং আরেকটি এক্সাম্পল এর দিকে তাকাই,

সেটি হচ্ছে ধরেন আপনি আপনার আমেরিকান কোন ইউনিভার্সিটি তে ভর্তি হতে চান।

আমেরিকান ইউনিভার্সিটির এক্সাম্পল যদি আমরা ধরিঃ

বলে রাখি আমেরিকান ইউনিভার্সিটি তে ভর্তি হওয়া সংক্রান্ত অনেক ভিডিও রয়েছে আমাদের এই চ্যানেলে তাহলে আপনারা সেগুলো দেখে নিতে পারেন।

এখন যদি আপনি আমেরিকান কোন ইউনিভার্সিটি তে ভর্তি হতে চান।

ইউনিভার্সিটি তে ভর্তি হতে কত পয়েন্ট লাগবে? সিজিপিএ কত লাগবে? জিয়ারি স্কোর কত লাগবে? আইএফসি স্কোর কত লাগবে?

এগুলো কিন্তু একটা সময় ছিল আপনার ম্যানুয়ালি চেক করতে হতো এবং এটি বেশ সময় সাপেক্ষ ব্যাপার ছিল।

কিন্তু বর্তমানে এখন অনেক ধরনের সফটওয়্যার তৈরি হয়েছে বা ওয়েব এপ্লিকেশন তৈরী হয়েছে,

যেখানে কিন্তু আপনি আপনার প্রোফাইলটি ইনপুট দিলে প্রোফাইল ম্যাচ করে সবগুলো ইউনিভার্সিটির তালিকা একসাথে পেয়ে যাবেন।

এখন কথা হচ্ছে এই যে আপনি আগে ম্যানুয়ালি ব্রাউজ করে এ সকল ইনফরমেশন কালেক্ট করতেন এটা কিন্তু এ আই টুল্পস এর মাধ্যমে করে দেয়া হচ্ছে।

কিন্তু আপনি আসলে কোন ইউনিভার্সিটিতে এপ্লাই করবেন,ইউনিভার্সিটি অ্যাকচুয়ালি আপনার সাথে ফিট করে কিনা সেটা কিন্তু আপনাকে ডিসিশন মেক করতে হবে।

এখানে ম্যানুয়ালি কি করতে হবে?

তাহলে এখানে দেখা যাচ্ছে যে এ আই টুলস কিছু কাজ অটোমেটিক করে দিলেও হিউম্যান থিংকিং ব্রেন দরকার রয়েছে।

এর বাইরে ট্রান্সলেশন ভয়েস অভার ১০০ বা ১০০০ বা তারও বেশি ক্যাটাগরি রয়েছে যেখানে বেসিক কাজগুলো অটোমেটিক হয়ে গেছে বা অটোমেটেড হওয়ার পথে রয়েছে এই টুলসটির কারনে।

এ কারণে কিন্তু আপনার এ এই হিউম্যান আপনার ভয় পাওয়ার কোন দরকার নেই।

তবে এ আই এই যে একটা ট্রানজেকশন তৈরি হচ্ছে এবং এ আই এসিস্ট্যান্ট এর মাধ্যমে এইযে অনেক কাজ গুলো অটোমেটেড হচ্ছে এটি কিন্তু একটা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার।

এখন এ আই কবে আসবে,এসেই আপনার জব খেয়ে দিবে কিনা এই চিন্তায় ওয়েব ডিজাইন ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখা বন্ধ করা কোন দরকার নেই।

এর কারণ ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট এই মুহূর্তে যদি আপনি শিখেন এবং শেখার পড়ে কিন্তু আপনি একটি জবে ঢুকতে পারবেন।

আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ডেভেলপমেন্ট শেখেন,সেখানে সেখানে কিন্তু জবে ঢুকতে পারবেন।

কিন্তু আপনি যদি মনে করেন এই এ আই তো চলে আসছে এ সময় আমি আবার নতুন করে এগুলো শিখে যাবো কেন।

তাহলে কিন্তু আপনার জব পেতে বেশি সমস্যা পোহাতে হবে।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এবং মেশিন লার্নিং এর ব্যাপারে সর্বশেষ আপনাদেরকে আরও একটি ইনফরমেশনঃ

আপনি যদি কোনো একটি অর্জন করেন এখানে কিন্তু আপনিই এ আই বা মেশিন লার্নিং ইমপ্লিমেন্ট করতে পারবেন।

ফর এক্সাম্পল আমি বায়োইনফরমেটিক্স খুব পছন্দ করি এখন বায়োইনফরমেটিক্স হচ্ছে মেশিন লার্নিং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বায়োলজির একটি কম্বিনেশনাল সাবজেক্ট।

তাহলে এখানে দেখা যাচ্ছে আমি যদি বায়োলজি ফিল্ডে কাজ করতে চাই সেখানেও কিন্তু বায়োলজিক্যাল এপ্লাই করতে পারি।

তাহলে আপনি ধরেন ওয়েব ডেভলপার হলেন বা প্লাগিন ডেভলপার হলেন তাহলে ভবিষ্যতে এমন হবে যে এ আই বেজড বিভিন্ন টুলস অথবা বিভিন্ন ধরনের ফিচার থাকবে।

কাজেই আপনি যেই সেক্টর আছেন অথবা যে যেই সেক্টরটি পছন্দ করেন সেখানে আপনি নিশ্চিন্তে কাজ শিখতে পারেন এবং সেই জবগুলোতে আপনি ঢোকার চেষ্টা করতে পারেন।

তারপরে আপনি এ আই অথবা মেশিন লার্নিং অথবা এর আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নিয়ে চিন্তা করুন।

এই এ আই বা মেশিন লার্নিং বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সরাসরি আমাদের কোনো জব খেয়ে দিতে পারবে না।

এটা যেমন তেমন ভাবে আমাদের ব্যাসিক যে কাজগুলো রয়েছে যেগুলোতে হিউম্যান ব্রেইন এর থিংকিং এর কোন দরকার নেই।

যেখানে আমাদের স্মার্টনেশ দেখানোর কোনো দরকার নেই,প্রবলেম সল্ভ এর দরকার নেই শুধুমাত্র বেসিক কাজগুলো কিন্তু এ আই মেশিন লার্নিং খেয়ে দিবে।

তো এই ছিল আজকের ব্লগ।

দেখা হবে পরবর্তী অন্য কোন ব্লগে,এরপর যদি কোন প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে আমাদের কমেন্ট বক্সে জানাতে ভুলবেন না। 

0Shares

3 thoughts on “আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স জব খেয়ে দিবে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close